চরাঞ্চলে টেঁটাযুদ্ধ বন্ধে পুলিশের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

আশিকুর রহমান, নরসিংদী জেলা প্রতিনিধি :মারবো না, মরবো না। থাকবো মোড়া মিলে মিশে’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে নরসিংদীর চরাঞ্চলে দীর্ঘদিনের টেঁটাযুদ্ধ বন্ধে জেলা পুলিশের উদ্যোগ্যে কয়েক হাজার মানুষকে একসঙ্গে শপথবাক্য পাঠ করান।

টেঁটাযুদ্ধ, খুনোখুনি, মারামারিসহ সকল প্রকার দাঙ্গা-হাঙ্গামা থেকে নিজেদের বিরত রাখতে এই শপথ অনুষ্ঠানে চরাঞ্চলের সকল চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন।

সোমবার (২৫ জুলাই) বিকেল ৫টায় নরসিংদী সদর উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের রসুলপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে চরাঞ্চলের বিভিন্ন গ্রুপগুলোর চলমান বিরোধ নিরসনে চরাঞ্চলের হাজারোও মানুষকে নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় এই শপথ পড়ানো হয়।

এ ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন নরসিংদী জেলা পুলিশ। করিমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মমিনুর রহমান (আপেল) এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম (পিপিএম)। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নরসিংদী সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ

প্রফেসর মোহাম্মদ আলী ও প্রফেসর গোলাম মোস্তফা মিয়া, নরসিংদী ইন্ডিপেন্ডেন্ট কলেজের অধ্যক্ষ ড. মশিউর রহমান মৃধা, নরসিংদী জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পীরজাদা কাজী মোহাম্মদ আলী,

নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সভাপতি জনাব মোঃ হাবিবুর রহমান হাবিব, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ন শাহ্সহ জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ। সভায় করিমপুর ইউনিয়নসহ চরাঞ্চলের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ তাদের মতামত ব্যক্ত করে বক্তারা বলেন, একসময় টেঁটা দিয়ে মাছ শিকার করা হতো।

এখন এই চরাঞ্চলগুলোতে তা দিয়ে মানুষ হত্যা করা হয়। এটা বর্বরতা ছাড়া আর কিছুই নয়। তাই মনের কালিমা দূর করে টেঁটাযুদ্ধ বন্ধসহ গ্রামের সকল ধরনের বিরোধের অবসান ঘটিয়ে সকলে মিলেমিশে থাকতে হবে। সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ, নারী নির্যাতন, ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ, সাইবার ক্রাইম রোধ ও পরোয়ানাভূক্ত আসামীদের গ্রেফতারে জেলা পুলিশের কার্যকর পদক্ষেপের জন্য সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন।

প্রধান অতিথি কাজী আশরাফুল আজিম উপস্থিত সকলের বক্তব্য মনোযোগ সহকারে শুনেন এবং প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, নরসিংদী জেলায় বিট পুলিশিং এর মাধ্যমে দীর্ঘদিনের বিরোধ নিষ্পত্তি, মাদক, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ, নারী নির্যাতন, ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ, সাইবার ক্রাইম মুক্ত সমাজ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে জেলা পুলিশ। মানুষের সেবা ও কল্যাণে সর্বোচ্চ আন্তরিকতা নিয়ে সর্বতোভাবে জনগণের পাশে থাকার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি।

এসময় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, সাংবাদিকবৃন্দ, মসজিদের ইমামসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

সম্প্রতি নরসিংদীর চরাঞ্চল রায়পুরা, নিলক্ষা, বাশঁগাড়ী ও আলোকবালী ইউনিয়নে গ্রামবাসীর মধ্যে একাধিক টেঁটাযুদ্ধে বেশ কয়েকজন নিহতসহ প্রায় দুই শতাধিক লোক আহত হয়।